প্রাচীন ভারতবর্ষে সমকামিতা!

ভারতে সমকামিতা ভারতীয় ইতিহাসে ভালভাবে নথিভুক্ত। এই রেকর্ডিংয়ের উপর ভিত্তি করে অনেক শিল্পকর্ম সারা দেশে পাওয়া যেতে পারে।

 

খাজুরাহো মন্দিরগুলি এমন একটি ইতিহাসের আবাসস্থল। 950 এবং 1050 খ্রিস্টাব্দের মধ্যে চান্দেলা রাজবংশের দ্বারা নির্মিত খাজুরাহো মন্দিরের ভাস্কর্যে পুরুষ ও মহিলাদের আলিঙ্গন করার চিত্রগুলি চিত্রিত করা হয়েছে।

 

পণ্ডিত এবং ঐতিহাসিকদের মতে, এটি সেই সময়ের সমকামিতা এবং সমকামী প্রেমের স্বীকৃতি। এই ভাস্কর্যগুলি প্রদর্শনে, শিল্পী লিঙ্গের সমতার পাশাপাশি লিঙ্গ পরিচয়ের তরলতার বিষয়ে একটি বিবৃতি দিচ্ছেন।

 

ত্রয়োদশ শতাব্দীতে নির্মিত উড়িষ্যার কোনার্কের সূর্য দেবালয় সূর্য মন্দিরেও অনুরূপ চিত্র দেখা যেতে পারে। কামসূত্রের ছবিগুলির একটি যৌন চিত্র মন্দিরের সম্মুখভাগে শোভা পায়, যা হিন্দু সূর্য দেবতাকে সম্মান করে।

 

উপরন্তু, পুরী এবং তাঞ্জোরের মন্দিরগুলিতে সমকামী যুগল চিত্রিত উজ্জ্বল চিত্র অন্তর্ভুক্ত। ভুবনেশ্বরের রাজরানি মন্দিরে, একটি মূর্তি রয়েছে যেখানে দুই মহিলা একে অপরের সাথে ওরাল সেক্স করছেন।

 

অজন্তা ও ইলোরার বৌদ্ধ গুহায় গৌতম বুদ্ধের জীবনের ছবি দেখানো হয়েছে। ভাস্কর্য এবং পেইন্টিংগুলিতে উচ্চ স্তরের স্থাপত্য দেখা যেতে পারে। বুদ্ধের রচনায় কামুকতা এবং যৌন পরিস্থিতি চিত্রিত করা বেশ কয়েকটি চিত্রকর্ম রয়েছে। এসব শিল্পকর্মে একই লিঙ্গের নারী-পুরুষকে প্রেম করতে দেখা যায়।

 

এই ভিজ্যুয়াল নথিগুলি ভারতীয় সমাজে সমকামিতার অভাব সম্পর্কে যে কোনও এবং সমস্ত দাবিকে অস্বীকার করে৷

 

তদ্ব্যতীত, ব্রিটিশ উপনিবেশকারীরা, যারা যৌনতার এই ধরনের সুস্পষ্ট প্রদর্শনগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করার আশা করেছিল, তাদের যৌনতার এই চিত্রগুলি দেখে হতবাক হয়েছিল। “বিকৃত” যৌনতাকে সংজ্ঞায়িত করার পাশাপাশি, ব্রিটিশ উপনিবেশবাদীরা যৌনতা সম্পর্কে ভারতের দৃষ্টিভঙ্গিকে প্রভাবিত করেছিল। উপরন্তু, তারা ভারতের নৈতিক দৃষ্টিভঙ্গিকে বৃহৎ করে তুলেছে।

 

Similar Posts

15 Comments

  1. কুত্তারবাচ্চা এইসব বাল-ছাল লেখা এখুনি থামা। ধর্ম নিয়ে লেখার যোগ্যতা তোরত নেই

  2. আপনি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পরা শুরু ক্রুন দেখবেন সব কিছু ঠিক হয়ে যাবে

  3. নাস্তিকের বাচ্চা ইসলাম নিয়ে উল্টাপাল্টা লিখিস? মরণের ভয় নাই তোর? দেশে আসবি না তুই? কয়দিন থাকবি দেশের বাইরে? একবার খালি দেশে আয়। তোর কি অবস্থা করি বুঝবি।

  4. ভালো লাগলো লেখাটা। এমন লেখা আরো চাই

  5. আসলে এই সময়ে র‍্যাশনাল চিন্তার কোন স্থানই মনে হয় নেই। সবাই কেমন জানি খুব উগ্র হয়ে যাচ্ছে

  6. কুত্তারবাচ্চা তোরা তো সব নাস্তিকের দল। তোরা কাদের র‍্যাডিকাল বলিস? আমাদের। কাফেরের বাচ্চা উগ্রতা তোদের মধ্যে বেশী। তোরা র‍্যাশনাল সূত্রের নাম করে উগ্রতা ছড়িয়ে দিস চালাকি করে

  7. আমাদের আইন্সার আল ইসলামের সৈনিকরা তোদের গলা কাটতে আসছে। যেমন কেটেছিলো অভিজিতের

    তুই বাঁচতে পারবিনা, তোরও পরিণতি অভিজিতের মতন হবে

  8. তোকে কোপাতে কোপাতে টুকরা টুকরা করা হবে। সেই মাংশ খাবে কুত্তারা

  9. কাফেরের বাচ্চারা দেখি এখন র‍্যাডিকাল আর র‍্যাশনাল ব্যাপার স্যাপার নিয়ে চিন্তিত

  10. তোর বাড়াবাড়ি অনেক দূর পর্যন্ত চলে গিয়েছে। এখন সময় তোকে কতল করা কাফেরের বাচ্চা। তুই একটা মুরতাদ। তোর নামে মামলা হয়েছে তারপরেও তুই সোজা হস নাই। এতই যখন তোর সাহস তাহলে তুই দেশে এসে একটু দেখ। আর দেশে না আসলেও ক্ষতি নেই। লন্ডনেই তোকে কেটে টুকরো করা হবে। এই কথা তোকে জানিয়েই দিলাম আমরা। এইবার খালি তোকে অপেক্ষা করতে হবে।

  11. তোর শরীর থেকে ধড় আলাদা করে ফেলব মুরতাদ নাস্তিকের বাচ্চা

  12. লেখাটা কিন্তু চমৎকার হয়েছে। ভালো লাগলো। অনেক চিন্তার খোরাক জাগালো। ভাই এইভাবে লিখে যাবেন সব সময়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.