জনপ্রিয় বাংলাদেশী নাস্তিকঃ আরজ আলী মাতুব্বর

আরজ আলী মাতুব্বর ১৯০০ সালের ১৭ ডিসেম্বর বাংলাদেশে জন্মগ্রহণ করেন এবং ১৫ মার্চ ১৯৮৫ তারিখে মৃত্যুবরণ করেন। তিনি একজন স্ব-শিক্ষিত দার্শনিক এবং যুক্তিবাদী ছিলেন।

অল্প বয়সে মাতুব্বর তার পিতাকে হারান। তিনি তখন একজন কিশোর ছিলেন, তিনি তার উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত সম্পত্তির উপর ভূমি কর দিতে অক্ষম ছিলেন। এই কারণে, তার বয়স যখন ১২ বছর তখন জমিটি নিলামে ওঠে। দরিদ্র যুবকটিকে আরও বেশি অনিশ্চিত অবস্থায় ফেলে দেওয়া হয়েছিল যখন স্থানীয় একজন দখলদার কয়েক প্রজন্ম ধরে তার পরিবারে থাকা খামারবাড়িটি ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ দেয়।

মাতুব্বর ছিলেন একজন নিঃস্ব শিশু যিনি অন্যের মমতায় এবং ক্ষেতমজুরের কাজ করে নিজেকে কোনোভাবে টেনে নিয়েছিলেন। তার আর্থিক অবস্থার কারণে, তিনি স্কুলে যেতে অক্ষম ছিলেন এবং তার পরিবর্তে কাছাকাছি একটি মসজিদ থেকে দেওয়া বিনামূল্যের মক্তব ধর্মীয় নির্দেশের উপর নির্ভর করতে হয়েছিল। কিন্তু তিনি শিক্ষার প্রতি প্রতিষ্ঠানের কর্তৃত্ববাদী দৃষ্টিভঙ্গি সহ্য করতে পারেননি এবং তাই তিনি চলে যান।

তিনি একজন স্পনসরের সহায়তায় বাংলা প্রাথমিক সম্পূর্ণ করতে সক্ষম হন। এরপর মাতুব্বর দীর্ঘ সময় পড়তে থাকেন। তার জ্ঞানের প্রয়োজন মিটাতে তিনি বরিশাল পাবলিক লাইব্রেরিতে পাওয়া প্রতিটি বাংলা বই পড়েন। দর্শনের ক্ষেত্রটিই তাকে সবচেয়ে বেশি আকৃষ্ট করেছিল, কিন্তু সেই সংগ্রহে এই বিষয়ে পর্যাপ্ত পরিমাণ ছিল না।

কাজী গোলাম কাদির, বি.এম. কলেজ এর দর্শনের শিক্ষক, আরজের দক্ষতা এবং বোধগম্যতার স্তরে এতটাই বিস্মিত হয়েছিল যে তিনি ছাত্রটিকে কলেজের লাইব্রেরি থেকে বই পরীক্ষা করতে সহায়তা করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন। এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই তার বুদ্ধির বিকাশ ঘটেছিল।

মাতুব্বর অত্যন্ত প্রগতিশীল দর্শন প্রতিষ্ঠা করেন এবং তাঁর লেখায় অজ্ঞতা, কুসংস্কার এবং ধর্মীয় গোঁড়ামির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেন। তার লেখার কারণে যা সে সময়ের গৃহীত ধর্মতাত্ত্বিক মতামতকে চ্যালেঞ্জ করেছিল, তিনি একজন আইকনোক্লাস্ট হিসাবে পরিচিত হয়েছিলেন। উদাহরণ স্বরূপ, তিনি সম্পত্তির উত্তরাধিকার নিয়ে ইসলামিক শাসন নিয়ে প্রশ্ন তোলেন কারণ তিনি উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত সম্পত্তি ভাগ করার প্রস্তাবিত পদ্ধতির সাথে সমন্বয় করতে পারেননি।

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা না থাকা সত্ত্বেও আরোজ আলী একাধিক উপন্যাস প্রকাশ করেন। তার কাজগুলি জীবন এবং জগত সম্পর্কে তার চ্যালেঞ্জিং বিশ্বাসের একটি অভিব্যক্তি। এছাড়াও, বরিশাল শহরের বেশ কিছু কমিউনিস্ট নেতা ও বুদ্ধিজীবীদের সাথে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল, বিশেষ করে অধ্যাপক কাজী গোলাম কাদির এবং মুহাম্মদ শামসুল হক। তার কাজগুলি প্রায়শই সরকার কর্তৃক বেআইনি ঘোষণা করার ঝুঁকি নিয়েছিল কারণ এতে কিছু দাবি রয়েছে যা সংখ্যাগরিষ্ঠ জনসংখ্যার ধর্মীয় মতামতের বিরোধী ছিল। বইটির কারণে, সোটের সন্ধানে, মাতুব্বরকে কর্তৃপক্ষ হেফাজতে নিয়ে আসে এবং গ্রেপ্তার করে। কারণ তার অনেক নিবন্ধে ধর্মীয় বক্তব্য এবং ঘোষণাকে প্রশ্নবিদ্ধ করা হয়েছে, তার লেখার প্রত্যক্ষ ফলাফল হিসেবে তিনি সারা জীবন হয়রানি ও হুমকির লক্ষ্যে ছিলেন।

মাতুব্বরের রচনাগুলি প্রকাশের জন্য, তাকে অসাধারণ পরিসরে যেতে হয়েছিল। তাঁর প্রথম বই, যা তিনি ১৯৫২ সালে লিখেছিলেন এবং ২১ বছর পরে ১৯৭৩ সালে সত্যের সন্ধানে শিরোনামে প্রকাশিত হয়েছিল, এতে একটি প্রচ্ছদ চিত্র অন্তর্ভুক্ত ছিল যা তিনি নিজেই এঁকেছিলেন। ভূমিকায় তিনি নিম্নলিখিতটি লিখেছেন:

“আমি অনেক কিছুই ভাবছি, আমার মন প্রশ্নে ভরপুর কিন্তু এলোমেলোভাবে। আমি তখন প্রশ্নের সংক্ষেপণ লিখতে থাকি, বই লেখার জন্য নয় শুধুমাত্র পরবর্তীকালে মনে করার জন্য। অসীম সমুদ্রের মতন সেই প্রশ্নগুলো আমার মনে গেঁথে আছে এবং আমি ধীরে ধীরে ধর্মীয় গণ্ডি হতে বের হতে থাকি।“

এই কাজে, তিনি ছয়টি প্রস্তাব রেখেছিলেন, যার প্রতিটিই তার একটি দার্শনিক অনুসন্ধানের চরিত্রকে প্রতিফলিত করেছিল। এর মধ্যে রয়েছে:

প্রথম প্রস্তাবঃ আত্মা বিষয়ক। এই অংশে ৮টি প্রশ্ন।

দ্বিতীয় প্রস্তাবঃ ঈশ্বর বিষয়ক। এই অংশে ১১টি প্রশ্ন।

তৃতীয় প্রস্তাবঃ পরকাল বিষয়ক। এই অংশে ৭টি প্রশ্ন।

চতুর্থ প্রস্তাবঃ ধর্ম বিষয়ক। এই অংশে ২২টি প্রশ্ন।

পঞ্চম প্রস্তাবঃ প্রকৃতি বিষয়ক। এই অংশে ১১ টি প্রশ্ন।

ষষ্ঠ প্রস্তাবঃ বিবিধ। এই অংশে ৯টি প্রশ্ন।

প্রথম আটটি প্রশ্নে তিনি নিজের ভাবভঙ্গি ব্যক্ত করেন। যেমন –

১। আমি কে? (নিজ)

২। জীবন কি শরীরী বা অপার্থিব?

৩। মন এবং আত্মা কি একই জিনিস?

৪। জীবনের সাথে শরীর বা মনের সম্পর্ক কি?

৫। আমরা কি জীবনকে চিহ্নিত করতে পারি?

৬। আমি কি মুক্ত?

৭। মরণোত্তর আত্মা শরীর বিহীন জ্ঞান ধারণ করে? এবং সর্বশেষ,

৮। কিভাবে শরীররে আত্মা প্রবেশ করে ও বের হয়?

 

Similar Posts

32 Comments

  1. আমাদের আইন্সার আল ইসলামের সৈনিকরা তোদের গলা কাটতে আসছে। যেমন কেটেছিলো অভিজিতের, তুই বাঁচতে পারবিনা, তোরও পরিণতি অভিজিতের মতন হবে

  2. বাংলাদেশ ইসলামের শাসনে চলে গেলে এই দেশ আর বাঁচবে না ভাই।

  3. আপনি লেখা থামাবেন না। যতই চাপ আসুক।

  4. খাঙ্কির পোলা জিহবা কাইটা ফালামু একেবারে।

  5. অনেক মন দিয়ে দু’বার পড়লাম। অনেক কিছু জানতে পারলাম ভাইয়া। অনেকেই আপনাকে কটু মন্তব্য করেছে। আপনি দমে যাবেন না।

  6. তোদের মত কিছু ইসলাম বিদ্বেষী ব্যাক্তিরাই এইসব মিথ্যে ছড়াস বিদেশের মাটিতে বসে।

  7. নাস্তিকের বাচ্চা ইসলাম নিয়ে উল্টাপাল্টা লিখিস? মরণের ভয় নাই তোর? দেশে আসবি না তুই? কয়দিন থাকবি দেশের বাইরে? একবার খালি দেশে আয়। তোর কি অবস্থা করি বুঝবি।

  8. লেখস তো শুধু ইসলামের বিরুদ্ধে, অন্য ধর্মের বিরুদ্ধে কি লিকিশ সবই দেখি। তোরে গর্দান এক কোপে ধড় থেকে ফেলে দিতে পারলে ভালো লাগতো

  9. আসলে তোকে এসব দিয়ে হবে না। তোকে কেটে টুকরো টুকরো করে নদীতে ভাসাতে হবে। তাহলেই সব কিছু ঠিক হয়ে যাবে

  10. শালা মানুষকে অনেক জ্ঞান বুদ্ধি আল্লাহ দিয়ে পাঠায়নি তাই এসব ভেবে তুই কুল পাবিনা

  11. আমি আপনাকে ধর্মের পথে আহবান করছি

  12. তুই একটা ইহুদীর দালাল। থাকস লন্ডনে আর গালাগালি করস ইসলামকে। তোর মতো নাস্তিক-মুরতাদের বাঁচার কোনো অধিকার নাই। তুই মরবি আমাদের হাতে। চাপাতি নিয়া অপেক্ষায় আছি।

  13. কুত্তারবাচ্চা। এখনো ভালো হস নাই, এখনো এইসব বাল ছাল লেখা থামাস নাই। যখন সব হারাবি তখন বুঝবি। মাথায় রাখবি লন্ডনেও আমাদের এজেন্ট আছে। রেহাই নেই তোর।

  14. চমৎকার ভাবনা। লিখে যান ভাই। এখানে অনেক মূর্খরা এসে মন্তব্য করবে কিন্তু দমে যাবেন না।

  15. apanar lekha pore mone hocche je edesher purushra nari nirjatoner shathe jukto noy. shadhu baba shob. hassokor lekha jotoshob!!!!

  16. শালা হারামীর বাচ্চা। নাস্তিকের দালাল।

  17. আসলে তোকে এসব দিয়ে হবে না। তোকে কেটে টুকরো টুকরো করে নদীতে ভাসাতে হবে। তাহলেই সব কিছু ঠিক হয়ে যাবে

  18. খাঙ্কির পলা মুসলমান নাম নিয়ে আসলে তুই হিন্দুর দালাল

  19. নাস্তিকের বাচ্চা তোর বিশ্বাস অবিশ্বাস বুঝামু। দেশে আইসা নে আগে।

  20. tui shob buijha pass disos? dui pata poira shob janos? tor moron kemne hoibo eita janos? janbi deshe ashle. wait kortesi tor jonno

  21. এই ধরনের কথা বলার জন্য গাটস লাগে। আপনার সেই গাটস আছে

  22. তুইতো ধর্মে বিশ্বাস করবি না নাস্তিকের বাচ্চা। তোর দরকার চাপাতির কোপ।দেশে আয় আগে তারপর দেখবি ।তোরে পিস পিস কইরা কুত্তারে খাওয়ামু।

  23. অনেক মন দিয়ে দু’বার পড়লাম। অনেক কিছু জানতে পারলাম ভাইয়া। অনেকেই আপনাকে কটু মন্তব্য করেছে। আপনি দমে যাবেন না।

  24. লেখস তো শুধু ইসলামের বিরুদ্ধে, অন্য ধর্মের বিরুদ্ধে কি লিকিশ সবই দেখি। তোরে গর্দান এক কোপে ধড় থেকে ফেলে দিতে পারলে ভালো লাগতো

  25. আসলে তুই ইসলামের বিরুদ্ধে লিখতে চাশ এই কারনেই এখন ধর্মে বিশ্বাস করস না বইলা ভেক ধরসস

Leave a Reply

Your email address will not be published.